কক্সবাজারে কথা কাটাকাটির জেরে গুলি, আহত-১১

কথা কাটাকাটির জেরে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে কক্সবাজারের পেকুয়ার মগনামা ইউনিয়নের উত্তর মগনামা ফুলতলা স্টেশন। এতে দুজন গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১১জন। শনিবার রাত ৮টা দিকে এ ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় আহতরা হলেন আফজলিয়াপাড়া এলাকার আমিনুল হকের ছেলে বেলাল উদ্দিন (৪০), ওসমান গনির ছেলে মোহাম্মদ ছবি (৩৫), কালুর ছেলে জালাল উদ্দিন (২৫), আনোয়ারের ছেলে সোনা মিয়া (২০), মৃত জালাল আহমদের ছেলে নাজেম উদ্দিন (৪৫), আকতার হোসেনের ছেলে ম্যাজিক গাড়ির হেলপার শাকের উল্লাহ (১৮), মৃত মো. ছফির ছেলে রিকশা চালক আবু (৪৫), তার ভাই মোস্তাক আহমদ (৪৭), আমিনুল হকের ছেলে ইউনুস (২০), নুরুল ইসলামের ছেলে নেজাম উদ্দিন মুজাহিদ (২৭) ও বেলাল উদ্দিনের স্ত্রী ফুলমাছ খাতুন (৩৫)। আহতদের পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। গুলিবিদ্ধ বেলাল ও জালালসহ গুরুতর আহত কয়েকজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ফুলতলা স্টেশনে আফজলিয়া পাড়ার এক ব্যক্তির সঙ্গে মাঝিরপাড়ার এক ব্যবসায়ীর কথা কাটাকাটি হয়।
এর জেরে মাঝিরপাড়ার দিদার, লালমিয়াপাড়ার আরমানসহ একদল ব্যক্তি আফজলিয়া পাড়ার কয়েকজনকে মারধর করে। এনিয়ে আফজলিয়া পাড়ার লোকজন প্রতিবাদ মুখর হন। এর কিছুক্ষণের মধ্যে আরমানের চাচার নেতৃত্বে ২০-৩০ জন অস্ত্রধারী ফুলতলা স্টেশনে এসে এলোপাতাড়ি গুলি ছুঁড়ে। এতে আফজলিয়া পাড়ার লোকজন গুলিবিদ্ধসহ আহত হন। এরপর লালমিয়াপাড়া, মাঝিরপাড়া ও করলীয়াপাড়াবাসী ফুলতলা স্টেশনে এসে দ্বিতীয় দফায় হামলা-ভাঙচুর-লুটপাট চালায়। এক পর্যায়ে তারা আফজলিয়া পাড়ায় ঢুকে পড়েন। এ সময় তারা চারটি বাড়ি ভাঙচুর করেন। খবর পেয়ে পেকুয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশ নাজেম উদ্দিন নামের একজনকে আটক করেছে। তবে স্থানীয়দের নাজেম ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়। পেকুয়া থানার ওসি (তদন্ত) মনজুর কাদের মজুমদার জানান, খবর পাওয়ার পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং একজনকে আটক করে। ঘটনাস্থলে এখন পুলিশের টহল চলছে বলে জানান তিনি।
Share on Google Plus

About Sadia Afroza

    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment