যা হয়েছে ভুল হয়েছে: শাকিব

প্রশ্ন: সোমবার কী হয়েছিল আপনার?
উত্তর: সোমবার ছিল আমার জীবনের সবচেয়ে খারাপ দিন। পুরো ব্যাপারটি এমন আকস্মিকভাবে ঘটে গেছে যে কিছুই বুঝে উঠতে পারিনি। এটা আসলে একটা বড় চক্রান্ত। শাকিব খানকে সরিয়ে বাংলা চলচ্চিত্রের বড় ক্ষতি করে দেওয়ার পরিকল্পনা। মানুষ সব সময় মানুষের ক্ষতি করার জন্য কাছের মানুষদের ব্যবহার করে। সোমবারের ঘটনাটি তেমনই। অপুর সঙ্গে আমার সবকিছু ভালোই চলছিল। দুজনের সমঝোতার মধ্য দিয়েই চলছিল। রোববার রাতেও আমরা একসঙ্গে গাড়িতে করে ঘুরেছি।
প্রশ্ন: তাহলে ওই কথাগুলো বলেছিলেন?
উত্তর: অনেক কথাই বলেছি, ছেলেকে ছোট করে কোনো কথা বলিনি। আমার সন্তান তো অবৈধ না। আমি সব সময় দায়িত্ব পালন করে আসছি। সব আবদার পূরণ করেছি। অপু নিজেও হয়তো সেটা বুঝে উঠতে পারেনি। আমি ভাবতেই পারিনি যে আমার ছেলে টেলিভিশন চ্যানেলে! কেমন অসহায়ের মতো দেখাচ্ছিল ওকে। শাকিব খানের ছেলে শাকিব খানের মতোই মানুষের কাছে আসবে, তেমনটিই চেয়েছিলাম। খুব রাগ হয়েছিল। যে কারোরই রাগ হতে পারে।
প্রশ্ন: যা কিছু হলো সব ভুলে একসঙ্গে পথ চলতে পারবেন তো?
উত্তর: আমরা তো একসঙ্গেই চলছিলাম। ভবিষ্যতেও থাকব। শিগগির আমাদের একসঙ্গে দেখা যাবে।
প্রশ্ন: সন্তানের দায়িত্ব নেবেন, কিন্তু স্ত্রীর দায়িত্ব নেবেন না বলেছিলেন কেন?
উত্তর: ওই যে বললাম, রাগের মাথায় অনেক কিছু বলেছি। সব সময় দায়িত্ব নিয়েছি, সামনেও নেব। আমি তো বলিনি সে আমার স্ত্রী না। স্ত্রীর মর্যাদাতেই সে থাকবে। কিছু কথা মানুষ মন থেকে বলে না। মানুষ সোমবার যে আমাকে দেখেছে, সে তো আমি নই। টেলিভিশনে অপুকে দেখে আমার মাথায় বাজ পড়ল। মনে হলো আমি এমন কী করলাম?
প্রশ্ন: অপু বিশ্বাসকে কিছু বলতে চান?
উত্তর: সবকিছুর ঊর্ধ্বে সে আমার সন্তানের মা। সব ভুলে আমরা নতুন করে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই। কিছু কথা সে রাগের মাথায় বলেছে। পর্দার হিরো শাকিব খান পরিবারেও হিরো হতে চায়। সবকিছু ছাপিয়ে আমিও তো কারও সন্তান। আমার মা-বাবা তাদের সন্তানদের যত্ন করে লালন করেছে। আমি বাবা হিসেবে সন্তান ও স্ত্রীর যত্ন করছি, করব। যা হয়েছে ভুল হয়েছে। অপু হয়তো বুঝে উঠতে পারছে না। আমরা একসঙ্গে বসলে সবকিছুই ঠিক হয়ে যাবে।
Share on Google Plus

About Sadia Afroza

    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment